ব্রডব্যান্ড ব্যবসা নষ্ট করার মূল হোতা হচ্ছে এর ব্যবসায়ীগণ

বিজ্ঞাপন

ব্রডব্যান্ড ব্যবসা নষ্ট করার মূল হোতা হচ্ছে এর ব্যবসায়ীগণ। কেননা গ্রাহক মাস শেষে ঠিকমত টাকা না দিলে এরা লাইন বন্ধ করে না। গ্রাহক হারানোর ভয়ে লাইন একটিভ রাখে। এভাবে যখন বেশকিছু গ্রাহক এমনটা করে তখন টাকার সমস্যা হয়। লাইনম্যানদের বেতন হয় না। আর তারা কাজ করতে চায় না। ঠিকমত সার্ভিস না পেয়ে গ্রাহক বিরক্ত হয়।

আর স্পিড এর ব্যপারটাও তাই। টাকা যেহেতু প্রতি মাসে কম কালেকশন হয় তাই মূল ব্যান্ডউইথ কিনতেই হিমশিম খাচ্ছেন তারা আবার গ্রাহক বাড়ার সাথে সাথে অতিরিক্ত ব্যান্ডউইথ কেনা সম্ভব হয় না।

বিজ্ঞাপন

ফলে অতিরিক্ত গ্রাহকের চাপে নেট স্পিড খারাপ হয়। গ্রাহক মাস শেষে টাকা দিতে চায় না। আবার গ্রাহক হারানোর ভয়, আবার টাকার সমস্যা। ব্রডব্যান্ড ব্যবসায়ীরা যতদিন পর্যন্ত স্বজনপ্রীতি করতে থাকবে ততদিন ব্রডব্যান্ড এর উন্নতি হবে না।

এদিকে পীরগঞ্জ এর মানুষ ৫০০ টাকার বেশি নেটের পিছনে খরচ করবে না। কিন্তু ১৫০০ টাকা দিয়ে রাউটার নিয়ে ১০-১৫ জনকে WiFi এর পাসওয়ার্ড শেয়ার করবে। এই ১০-১৫ জন এর মধ্যে ২ জনও যদি আপনার WiFi এ একটিভ থাকে তাহলেই আপনার ৫০০ টাকার নেটের বারোটা বেজে যাবে।

আইএসপিরা গ্রাহক হারানোর ভয় কেন করে?
০১। পীরগঞ্জ একটি ছোট এবং ডিজিটালি পিছিয়ে থাকা একটা শহর। তাই এখানে গ্রাহক কম। গ্রাহক আছে কিন্তু কম।

০২। একজন গ্রাহক কোন এলাকায় সংযোগ নিলে সেই এলাকায় আরো কিছু গ্রাহক তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই গ্রাহক কোন মাসের টাকা না দিলেও ‍ISP লাইন বন্ধ করে না। এটা তাদের একটা ব্যবসায়িক কৌশল।

০৩। একটি নতুন সংযোগের পিছনে বেশকিছু ফাইবার অপটিক তার, MC (মিডিয়া কনভার্টার), সুইচ ডিভাইস এবং গ্রাহক পর্যন্ত পৌছানোর CAT সিরিজের RJ45 তার এবং RJ45 কানেক্টর লাগে। যার খরচ অনেক বেশি। কিন্তু একজন নতুন গ্রাহক সর্বোচ্চ ২০০০ টাকা ব্যয় করে নতুন সংযোগের জন্য। ব্যবসায়ীরা মাসে মাসে বিল এবং নতুন কিছু সংযোগ দিয়ে (প্রথম ব্যবহারকারীর সংযোগ সুইচ হতে আরো কিছু সংযোগ করা যায়) নতুন কিছু গ্রাহক তৈরি করে এবং তাদের হতে যে টাকা পাওয়া যায় তা দিয়ে ৩-৫ মাসের মধ্যে উপরে উল্লেখিত ডিভাইস ও তারের টাকা উঠে আসে। আর এরপর যে টাকাগুলো আসে সেগুলো হতে লাভ আছে।

অর্থাৎ ISP ব্যবসা একটি বিনিয়োগ নির্ভর ব্যবসা। তাই চট করে নতুন গ্রাহকের টাকা বাকি থাকায় সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা ISP এর জন্য হিতে বিপরীত হয়। মানে নতুন গ্রাহক অন্য সম্ভাবনাময় গ্রাহকদের নিরুউৎসাহিত করে। এটা হচ্ছে একটা লুপ বা গোলক ধাঁধা। এদিকে টান পড়লে ওদিকেও টান পড়ে।

ব্রডব্যান্ড ব্যবসা নষ্ট করার মূল হোতা হচ্ছে এর ব্যবসায়ীগণ। কেননা গ্রাহক মাস শেষে ঠিকমত টাকা না দিলে এরা লাইন বন্ধ করে না।

এখন আশা করি অনেকেই বুঝবেন কেন সমস্যাগুলো হয়। এখানে বললাম ব্যবসায়ীক সমস্যাগুলোর কথা, টেকনিক্যাল সমস্যাগুলো আর একদিন ব্যাখ্যা করবো।

এখন প্রশ্ন, সমাধান কী এই সমস্যার?

সমাধান: টাকা! গ্রাহককে টাকা মাসেন শুরুতেই নির্দিষ্ট সময়ে দিতে হবে। আর আইএসপিদের বলতে হবে আমি একজন নিয়মিত গ্রাহক এবং আমি নেট বিল ঠিক সময়ে পরিশোধ করি। আমার সেবা এবং নেট স্পিড সঠিক চাইই চাই।

আর যেহেতু গ্রাহক সঠিক সময়ে টাকা পরিশোধ করে তাই আইএসপিদের তাদের সেবার মান বাড়াতেই হবে। গ্রাহক দিন দিন বাড়বেই। ডিজিটাল বাংলাদেশে গ্রাহক কমার কোন সুযোগ নাই।

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। পীরগঞ্জ টোয়েন্টিফোর-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য পীরগঞ্জ টোয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না। ***

বিজ্ঞাপন

***পীরগঞ্জ টোয়েন্টিফোরে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।***

Content Protection by DMCA.com
বেথুন কুমার বর্মন

বেথুন কুমার বর্মন

ইলেকট্রনিক্সে ডিপ্লোমা করে গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপরে ফ্রিল্যান্সিং করছেন। টেকনোলজি নিয়ে লিখতে ভালোবাসেন। বই পড়তে ভালোবাসেন প্রচুর। সেই সাথে নিজের একটা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালান।