১০ বছর তো অনেক দুর্নীতি, লুটপাট করেছেন দেশ বাঁচাতে এবার নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন

এবার থামেন, ১০ বছর তো অনেক দুর্নীতি, লুটপাট করেছেন, গুম করেছেন। দেশ বাঁচাতে এবার নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন’- বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সরকারকে উদ্দেশ্য করে সোমবার ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে বিএনপিপ্রধান এসব কথা বলেন।

ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর খালেদা জিয়া চন্দ্রিমা উদ্যানে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারত করেন। বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, ঈদ অত্যন্ত আনন্দের দিন। কিন্তু এ বছর ঈদের আনন্দ কারো মাঝে নেই। কারণ সারাদেশে অনেক দুর্ঘটনা ঘটেছে এবছর। এর ফলে মানুষের মনে কোনো আনন্দ নেই। সকলেই শোক, দুঃখ, ব্যথা বেদনা নিয়ে ভারাক্রান্ত মনে এই ঈদ করছে।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘গত ১০ বছরে অনেক করেছেন। গুম, খুন করেছেন। আল্লাহর কাছে বিচার হবে। এবার থামেন, নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন।’

দেশের অর্থনেতিক বৈষম্যের কথা উচ্চারণ করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘একশ্রেণির বিত্তশালীরা বিদেশে গিয়ে মার্কেট করছে। আরেক শ্রেণি দুর্যোগের মধ্যে পড়ে আছে। দেশের মানুষ তো এখন ব্যাংকে টাকা রাখে না। কিন্তু যারা টাকা লুটপাট করেছে তাদের টাকা তো বিদেশে পাচার হয়ে গেছে।’

দেশে দুর্ভিক্ষ অবস্থা বিরাজ করছে এমন অভিযোগ করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘হাওরে এই ঈদের সময় দুর্ভিক্ষ চলছে। তারা একবেলাও খেতে পারছে না। বিশেষ করে হাওড়ের আগাম বন্যায় সেখানে বিপর্যয় এসেছে।’

আওয়ামী লীগ দেশকে সন্ত্রাস, দুর্ভিক্ষ, দুর্নীতি দিতে পারে মন্তব্য করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘তারা হাওরের খোঁজ নিচ্ছে না। পাহাড় ধস হলেও সেখানে হেলিকপ্টারে করে ত্রাণ দেওয়া যেতে পারতো, কিন্তু তারা তা করেনি।’

খালেদা জিয়া বলেন, গত ১০ বছরে আওয়ামী লীগ প্রতিটি প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দিয়েছে। দেশের মানুষও পরিবর্তন চায়। এই সরকারে কাছ থেকে জনগণ আর ভালো কিছু আশা করে না।

আরও পড়তে পারেন: ঈদে বাড়ি ফেরার পথে পীরগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৭ পোশাক শ্রমিক নিহত

সোমবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠান হয়। ঈদের দিন দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে কূটনীতিক, বিশিষ্ট নাগরিক-পেশাজীবী এবং দলীয় নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন তিনি। এর আগে ১২টা ২৬ মিনিটে এই মিলনায়তনে আসেন খালেদা জিয়া। শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে প্রায় ১৮ মিনিট বক্তব্য দেন তিনি।

শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রচণ্ড ভিড় দেখা গেছে। হাজার হাজার নেতাকর্মী এসেছেন খালেদা জিয়ার সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে। এসময় বিএনপির স্থায়ী সদস্য কমিটির ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়সহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

প্রথমে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নসহ বাংলাদেশে নিযুক্ত কূটনীতিক, দাতাসংস্থার প্রতিনিধিরা। এর পরে বিশিষ্ট নাগরিকরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। পরে দলীয় নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের সাধারণ মানুষের সঙ্গেও শুভেচ্ছা বিনিময় করেন বিএনপি চেয়ারপারসন। অনুষ্ঠানে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ দলের সিনিয়র নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জামায়াতের নায়েবে আমির অধ্যাপক মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে পাঁচ জনের একটি প্রতিনিধি দল খালেদা জিয়ার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এদিন খালেদা জিয়া হালকা নীলরঙের ওপর বিভিন্ন কাজ করা একটি শাড়ি পরে মিলনায়তনে আসেন। অনুষ্ঠানে অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ, সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, সাদেক খান, রুহুল আমীন গাজী, আবদুল হাই শিকদার উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ২০ দলীয় জোটের শরিক দলগুলোর মধ্যে জেবেল রহমান গাণি, শাহাদাত হোসেন সেলিমসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

—বাংলাদেশ সময়: সন্ধ্যা ০৬:১৮, ২৬ জুন, ২০১৭

***পীরগঞ্জ টোয়েন্টিফোরে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।***

আরও পড়ুন...